শিরোনামঃ
বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্দা উঠলো কক্সবাজার শিল্প ও বাণিজ্য মেলারকুয়াশাস্নাত ভোরে শহীদদের স্মরণস্মৃতিসৌধে লাখো মানুষের ঢলবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাস্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাসরকারের স্বাস্থ্যনীতি বাস্তবায়নে সকলের সম্মিলিত প্রয়াস প্রয়োজন –ডা: শেখ শফিউল আজমচট্টগ্রাম প্রাথমিক দন্ত চিকিতসক কল্যাণ সমবায় সমিতির নির্বাচন সম্পন্নপশ্চিম টইটং নুরানী একাডেমীর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনমহেশখালী-বদরখালী বিজয় দিবস উপলক্ষে ফুলের দোকান সমূহে বিক্রির ধুমমহেশখালীতে অবৈধ করাতকলে চলছে গাছ চিরাই, বনবিভাগ নির্বিকারজাতীয় ছাত্র সমাজ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নেতৃবৃন্দের সাথে পানিসম্পদ মন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাতকক্সবাজার শিল্প ও বানিজ্য মেলার উদ্বোধন আজজাতিকে মেধা শূন্য করার জন্য বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছিলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে আরেকটি মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত তরুণ সমাজকক্সবাজারে বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রদীপ প্রজ্জলন

কক্সবাজারে আওয়ামীলীগের নিবেদিত প্রাণ একটি পরিবার

18446792_1708470492516064_3941835769445660192_n.jpg

যে পরিবারের সদস্যরা দেশ-বিদেশে আওয়ামীলীগের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন নিরলস

অজিত কুমার দাশ হিমু, সাগরকন্ঠ ডটকম :
কক্সবাজারের সীমান্ত শহর টেকনাফের এক আওয়ামী পরিবার দেশে ও দেশের বাইরে দলের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তাদের কর্মকান্ডে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সকল নেতৃবৃন্দ এমনকি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ওয়াকিবহাল আছেন। এই পরিবারের সন্তান সফল ব্যবসায়ী শিল্পপতি মোহাম্মদ ঈসমাইল মনে করেন, কিছু পাওয়ার জন্য আমরা আওয়ামীলীগ করি না, আমরা বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ভালবাসি বলে আওয়ামীলীগের জন্য কাজ করি। সাধারণ মানুষ মনে করেন, আওয়ামীলীগের দুর্দিনের বন্ধুদের এখন মূল্যায়ন করার সময় এসেছে।

আলহাজ্ব সোনা আলীর পিতা হাজী উলা মিয়া

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দিপু মনির সাথে আলহাজ্ব সোনা আলী ও মোহাম্মদ ইসমাঈল

সুত্রে জানা যায়, ১৯৭১সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে টেকনাফের শাহপরীরদ্বীপের হাজী উলা মিয়ার পরিবারকে আওয়ামী পরিবার বলে জানত মানুষরা। তারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে সেই থেকে আওয়ামীলীগের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। সেই থেকে এই পরিবারের বড় ছেলে আলহাজ্ব সোনা আলী আশির দশকের শুরুতে সৌদি আরবে বঙ্গবন্ধুর ভালবাসায় সিক্ত হয়ে প্রতিষ্ঠা করেন জেদ্দা বঙ্গবন্ধু পরিষদ। দীর্ঘ দুই যুগ তিনি জেদ্দা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। আওয়ামীলীগের দুরদিনে তিনি বিভিন্ন সময় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে অনেক অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন। বর্তমানে সেই পরিবারের জ্যেষ্ঠ সন্তান আলহাজ্ব সোনা আলী কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও শাহপরীর দ্বীপ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সফল সভাপতি হিসেবে দায়িত্বরত আছেন।

তিনি গেল ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনিত নৌকা প্রতিকে চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। কিন্তু স্থানীয় এমপি বিএনপি-জামায়াতের সাথে আতাত করে ষড়যন্ত্র করায় অল্প ভোটে তিনি পরাজিত হন।

এই পরিবারের আরেক সন্তান মোহাম্মদ ইসমাঈল

আওয়ামীলীগ রাজনিতি শুরু করেন মরুর দেশ দুবাই (সংযুক্ত আরব আমিরাত ইউ,ই) তে। তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউই) আওয়ামীলীগের ও আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের প্রধাণ উপদেষ্ঠা এবং একজন সফল ও সৎ ব্যবসায়ী। তিনি এই যুগের শ্রেষ্ঠ একজন দেশপ্রেমিকও বটে। তা না হলে বিদেশ থেকে অর্জিত টাকা সরকারকে রেমিট্যান্স দিয়ে কক্সবাজার জেলার তিন তিন বার শ্রেষ্ঠ রেমিট্যান্স দাতা হতেন না। দেশের প্রতি তার ভালবাসা আছে বলেই বিদেশে স্থায়ী কিছু না করে নিজের দেশে সে অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। দেশে ও দেশের বাইরে দলীয় লোকদের জন্য অনেক বেশি কাজে এসেছেন এই ইসমাইল। একজন ত্যাগী দলীয় কর্মীকে নিজের পরিবারের সদস্য মনে করেন তিনি। সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউই) তে কোন আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতা বা মন্ত্রী এমপি সফর করলে তাদেরকে ইসলাইল সমাদর করেন।

এই পরিবারের অপর ছেলে সাবেক ছাত্রনেতা দুবাই প্রবাসী আবুল হোসেন সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউই) আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব রত আছেন। এই পরিবারের ২য় প্রজন্মে ছেলেরা ও আওয়ামী রাজনিতির সাথে জড়িত।
এই পরিবারের আরেক সদস্য ফাহাদ আলী ফাহাদ সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউই) আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। অপরজন আবদু সাত্তার, টেকনাফ উপজেলা শেখ রাশেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

এই আওয়ামী পরিবারকে নিয়ে পুরো কক্সবাজার জেলা গর্বিত। এই পরিবার দলকে কে শুধু দিচ্ছে, দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু দল থেকে কিছুই নেইনি এই পর্যন্ত। ত্যাগী এই আওয়ামী পরিবারকে মূল্যায়ন করার সময় এসেছে বলে মনে করছেন স্থানীয় সাধারণ মানুষরা।
কক্সবাজার-টেকনাফের মানুষ মনে করেন, যারা দুর্দিনে আওয়ামীলীগের পাশে ছিলেন, আওয়ামীলীগের সুদিনে তাদের মূল্যায়ন করা প্রয়োজন। তা না হলে ভবিষ্যতে আওয়ামীলীগ বান্ধব কর্মী/সমর্থক গড়ে উঠবেনা।
অপরদিকে, সারাদেশে আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারীরা যেভাবে দলে ডুকে দলের বদনাম হয় এমন কর্মকান্ড করে যাচ্ছে, সেখানে ত্যাগী এই পরিবার শুধু দলের সুনাম বাড়াতে কাজ করে যাচ্ছে। ফলে এই পরিবারের সকল সদস্যকে সাধারণ মানুষ গ্রহন করেছেন মনে প্রানে।
এই পরিবারের সদস্য মোহাম্মদ ঈসমাইল মনে করেন, আমরা কিছু পাওয়ার আশায় আওয়ামীলীগ করি না। কারণ আমার পিতা বঙ্গবন্ধুকে ভালবাসতেন। আমাদের বড় ভাই সোনা আলী সহ পরিবারের সকল সদস্য আওয়ামীলীগ তথা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মনে প্রানে ভালবাসেন তাই দলের জন্য নিবেদিত হয়ে দেশে বিদেশে কাজ করে যাচ্ছি। আমরা চাই জননেত্রী শেখ হাসিনা সুস্থ থাকুক এবং বাংলার মেহনতি মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাক। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এগিয়ে যাবে। আমরা তার সারথী হয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে দেশে বিদেশে কাজ করে যাব। ইনসা আল্লাহ।

আওয়ামীলীগের বিভিন্ন প্রোগ্রামে আলহাজ্ব সোনা আলীর স্বরব উপস্থিতি ও বক্তব্য

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 বিভিন্ন সময় আওয়ামীলীগ নেতাদের সাথে আলহাজ্ব সোনা আলী

 

 এই পরিবারের অপর সন্তান মোহাম্মদ ইসমাইল:

 

এই পরিবারের আরেক সন্তান সফল ব্যবসায়ী ও শিল্পদ্যোগক্তা মোহাম্মদ ইসমাঈলের সাথে আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় ও জেলা এবং যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ

 আওয়ামীলীগের বিভিন্ন প্রোগামে বক্ত্যরত সফল ব্যবসায়ী ও শিল্পদ্যোগক্তা মোহাম্মদ ইসমাঈল

 

গরীব দু:খী মানুষের পাশে দাঁড়ালেন এই পরিবারের সন্তান মোহাম্মদ ইসমাঈল, সাথে ছিলেন এমপি কমল

 

 

 

 

 

 

 

 

এই পরিবারের আরেক সদস্য আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের সাথে

PinIt
Top