শিরোনামঃ
বর্ণাঢ্য আয়োজনে পর্দা উঠলো কক্সবাজার শিল্প ও বাণিজ্য মেলারকুয়াশাস্নাত ভোরে শহীদদের স্মরণস্মৃতিসৌধে লাখো মানুষের ঢলবঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাস্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধাসরকারের স্বাস্থ্যনীতি বাস্তবায়নে সকলের সম্মিলিত প্রয়াস প্রয়োজন –ডা: শেখ শফিউল আজমচট্টগ্রাম প্রাথমিক দন্ত চিকিতসক কল্যাণ সমবায় সমিতির নির্বাচন সম্পন্নপশ্চিম টইটং নুরানী একাডেমীর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনমহেশখালী-বদরখালী বিজয় দিবস উপলক্ষে ফুলের দোকান সমূহে বিক্রির ধুমমহেশখালীতে অবৈধ করাতকলে চলছে গাছ চিরাই, বনবিভাগ নির্বিকারজাতীয় ছাত্র সমাজ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নেতৃবৃন্দের সাথে পানিসম্পদ মন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাতকক্সবাজার শিল্প ও বানিজ্য মেলার উদ্বোধন আজজাতিকে মেধা শূন্য করার জন্য বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছিলশেখ হাসিনার নেতৃত্বে আরেকটি মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত তরুণ সমাজকক্সবাজারে বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রদীপ প্রজ্জলন

মহেশখালীতে ফ্যাক্টরীর বেল্ডটে হাত পেচেঁ এক শ্রমিক আহত

kalarmarchad-pic-20.11.17.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক,
মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের চালিয়াতলী বালুরডেইল এলাকায় ছোট এক ফ্যাক্টরীতে শ্রমিকের কাজ করার সময় অসবধনতায়বশত: মিলের বেল্ডটে হাত ফেঁচিয়ে চাপা পড়ে এক শ্রমিক আহত হয়ে বাম হাতের অর্ধেক অংশ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এসময় উক্ত শ্রমিককে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে মালিক পক্ষ চকরিয়া ডুলাহাজারা মালুমঘাট মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত শ্রমিকের নাম মোঃ আলমগীর (১৭)। সে ইউনিয়নের উত্তরনলবিলা বড়–য়া পাড়া ২নং ওয়ার্ড এলাকার আব্দুল কাদেরের ছেলে। ঘটানাটি ঘটেছে গত ১৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটার সময়। ডাক্তারেরা জানিয়েছেন আহত যুবক এখন ভাল আছেন শংকামুক্ত। তিনি ২১ নভেম্বর সোমবার বাড়ি ফিরে যেতে পারবেন বলেও জানিয়েছেন।

আহত শ্রমিক আলমগীরের ভাষ্যমতে, তিনি প্রতিদিনের ন্যায় কলঘরের মেশিন চালু করে ক্রেতাদের ধান ও অন্যন্যা জিনিস চুড়ে দিচ্ছিলেন হঠাৎ এক পর্যায়ে মেশিনের বেল্ড পড়ে গেলে তিনি বিদ্যুৎ থেকে মেশিন বন্ধ না করে ভূলবশষত মেশিন চালু অবস্থায় বেল্ড তুলে দিতে গিয়ে বেল্ডডের সাথে তার হাত পেঁচে যায় তখন তিনি প্রাণে রক্ষার্থে হাত স্ব-জুরে টান দিলে তার বাম হাতের অর্ধেক শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয় বলে জানান। তিনি আরোও বলেন, তখন আমি অজ্ঞান হয়নি জ্ঞান ছিল। তে মালিক পক্ষ আমাকে ভালভাবে চিকিৎসা করিয়েছেন। তাদের কোন দোষ নাই। তবে প্রতিদিন আমি বেল্ড পড়ে গেলে বিদ্যুৎ বন্ধ করে তুলতাম। এরকম কোন সময় হয়নি। এটি কপালের লিখনি ছিল বলেও জানান তিনি। খবর পেয়ে স্থানিয় ইউপি সদ্য আকতারোজ্জামান বাবু আহত শ্রমিককে এক নজরে দেখতে মালুমঘাট হাসপতালে ছুটে যান। এবং তাকে সহযোগিতার আশ্বস্থ করেন। ফ্যাক্টরীর মালিক আলহাজ্ব নুরুল আমিন বাবুল বলেন, আসলে আহত আলমগীর শান্তশিষ্ট ভাল স্বভাবের ছেলে। কাজে কালক্ষেপন করত না। সে আহত হওয়ায় আমি মর্মাহত। আমার পক্ষ থেকে নিজ ছেলের মত সাধ্যমত চিকিৎসা করা হচ্ছে। এবং ভবিষ্যতে আমার পক্ষ থেকে তাকে সাধ্যর মধ্যে সহযোগিতা করা হবে।

PinIt
Top